নামজারী বা মিউটেশন

আইনগতভাবে স্বীকৃত কারণে জমির মালিকনা পরিবর্তন ঘটলে যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নতুন মালিকগণের মালিকানা পরিবর্তিত জমির পরিমাণবা অংশ, দাগ নম্বর ইত্যাদি বিষয় খতিয়ানে প্রতিফলনের মাধ্যমে রেকর্ড সংশোধন করা হয় তাকে নামজারী, জমিভাগ, জমি একত্রিকরণ, খারিজ বলে। নিজ নিজ এলাকার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর আবেদন করে নামজারী/মিউটেশন করতে হয়। উক্ত হিসাব বিবরণী অর্থাৎ খতিয়ানে মালিকের নাম, কোন্ মৌজা, মৌজার নম্বর (জে এল নম্বর), জরিপের দাগ নম্বর, দাগে জমির পরিমান, একাধিক মালিক হলে তাদের নির্ধারিত হিস্যা ও প্রতি বছরের ধার্যকৃত খাজনা (ভূমি উন্নয়ন কর) ইত্যাদি লিপিবদ্ধ থাকে। 

Ø পাসপোর্ট সাইজের ০১ কপি সত্যায়িত ছবি;

Ø এস.এ খতিয়ান এর ফটোকপি/ সার্টিফাইট কপি;

Ø আর.এস খতিয়ান/ মাঠ জরিপের পর্চা এর ফটোকপি/ সার্টিফাইট কপি;

Ø খারিজ খতিয়ানের ফটোকপি (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে);

Ø ওয়ারিশ সনদপত্র (অনধিক তিন মাসের মধ্যে ইস্যুকৃত);

Ø মূল দলিলের ফটোকপি/ সার্টিফাইট কপি;

Ø বায়া দলিলের ফটোকপি/ সার্টিফাইট কপি;

Ø ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধের দাখিলা (অবশ্যই দাখিল করতে হবে);

Ø তফসিলে বর্ণিত চৌহদ্দি কলমী নক্সা (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে);

Ø প্রযোজ্য ক্ষেত্রে আদালতের রায়/ আদেশ/ ডিক্রীর ফটোকপি/ সার্টিফাইট কপি;

Ø ডিসিআর ব্যতিত কোন খারিজ খতিয়ান সরবরাহ করা হবে না।

Ø সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর সরকার নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হয়;

Ø আবেদনপত্রের সাথে প্রয়োজনীয় কোর্ট ফি এবং অন্যান্য ফি জমা দিতে হয়;

Ø আবেদনপত্র জমাদানের সময় মামলা নং এবং কবে মামলা নিষ্পত্তি হবে তা সংগ্রহ করতে হয়;

Ø তহসিল অফিস কর্তৃক মামলা নথির তদন্ত গ্রহণ এবং নামজারী প্রস্তাব প্রস্তুত করা হয়;

Ø ক্ষেত্র বিশেষে সেটেলমেন্ট অফিসেডকুমেন্ট পাঠানো হয় এবংমতামতগ্রহণ করা হয়;

Ø শুনানির জন্য তারিখ নির্ধারণ এবং আবেদনকারীকে নোটিশ প্রদান/ তবে না অনুমোদনের জন্য প্রস্তাব প্রদান করা হলেও সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষকে নোটিশ প্রদান করা হয়;

Ø সহকারি কমিশনার(ভূমি) এরউপস্থিতিতে শুনানি গ্রহণ এবং রায় ঘোষণা করা হয় অথবা রায় ঘোষনার তারিখ প্রদান করা হয়;

Ø মামলার রায় নামজারী রেজিস্ট্রারে লিপিবদ্ধ করা হয়;

Ø ইউনিয়ন ভূমি অফিসের রেকর্ড সংশোধন করার জন্য রায়ের কপি পাঠানো হয়;

Ø উপজেলা ভূমি অফিসেররেকর্ড বা খতিয়ান সংশোধন এবং সেটেলমেন্ট অফিসের পর্চাসংশোধনের জন্য কপি পাঠানো হয়;

Ø উপজেলা ভূমি অফিসে নামজারী মামলার কেস বা নথি ১২ বছর পর্যন্তসংরক্ষণ করা হয়;

(১) আবেদন বাবদ কোর্ট ফি = ২০.০০ টাকা

(২) রেকর্ড সংশোধন ও পর্চা ফি বাবদ = ১০০০.০০ টাকা

(৩) প্রতি কপি মিউটেশন খতিয়ান ফি = ১০০.০০ টাকা

(৪) নোটশ জারি ফি = ৫০.০০ টাকা

 সর্বমোট = ১১৭০.০০ টাকা

বিঃ দ্রঃ এখানে উল্লেখ্য যে, আবেদন বাবদ ৫.০০ টাকা কোর্ট ফি এর মাধ্যমে এবং অবশিষ্ট এফ.ডি.সি.আর এর মাধ্যমে জমা দেয়া যেতে পারে। মিউটেশন করার সাথে সাথে একটি খতিয়ানের অনুলিপি অফিস থেকে দেয়া হয়, যাকে মিউটেশন বা খারিজ পর্চা বলে। নামজারি বাবদ উপরোক্ত খরচ ছাড়া অন্য কোন টাকা দেওয়া বা নেওয়া সম্পূর্ণ বেআইনী ও অবৈধ।  

সিটিজেন চার্টার অনুসারে ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) কর্ম দিবসের মধ্যে নামজারী সম্পাদন করা হবে, যদি মালিকানার বিষয় নিয়ে কোন বিতর্ক না থাকে এবং প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট আবেদনের সাথে জমা দেয়া হয়।

Free Consultancy